প্রাচুর্যের লালসা



দুনিয়ার প্রতি অত্যাধিক ভালোবাসা, দুনিয়া পাওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা আমাদেরকে আখিরাতের প্রত্যাশা এবং সৎকাজ থেকে বেপরোয়া করে দিয়েছে। এমনকি এসব ঝামেলায় থাকতেই হঠাৎ মৃত্যু এসে আমাদেরকে কবরে পৌঁছে দিচ্ছে। আর এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়েই সূরা তাকাসুর নাযিল হয়েছে।

সূরা তাকাসুর এর বাংলা অর্থঃ
প্রাচুর্যের প্রতিযোগিতা তোমাদের ভুলিয়ে রাখে। যতক্ষণ না পর্যন্ত তোমরা কবরে পৌঁছাচ্ছ। না! তোমরা জানবে। আবারও না! তোমরা জানবে। না! তোমরা যদি নিশ্চিত জ্ঞানে জানতে! নিশ্চয়ই তোমরা জাহান্নাম দেখবে! তোমরা একে দেখবে নিজের চোখেই। এরপর, নিয়ামত সম্পর্কে তোমাদের কাছে জানতে চাওয়া হবে। (সূরা আত-তাকাসুর: ১-৮)

সূরা তাকাসুর এর সংক্ষিপ্ত তাফসিরঃ
আমরা সবাই জীবনের উপকরণগুলো নিয়ে ব্যস্ত। টেলিভিশন, ভিডিও গেমস, মুভি, গান, খেলাধুলা, কাজ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং সমাজ - এসবকিছু। আর এসবে আমরা এতই ডুবে আছি যে, আল্লাহকে নিয়ে, ইসলামকে নিয়ে ভাবারই সময় পাই না। ইসলাম মেনে চলা বা ইসলাম নিয়ে পড়াশোনা করা তো দূরের কথা। আর এটাই দুনিয়াবি প্রাচুর্যের পেছেনে ছুটে চলা। আর এ কথায় আল্লাহ্ ওপরের সূরায় বলেছেন। আর এটা বুঝতে কি আমরা মৃত্যু পর্যন্ত অপেক্ষা করবো?

না, আমরা চাইলে এখনই বদলাতে পারি। আর এক মুহূর্তও দেরি করার কোন মানে নেই। মানে নেই ভবিষ্যতের জন্য ফেলে রাখার। আমাদের জীবনের চাকাটা ঘুরাতে হবে, নিজেদের প্রশ্ন করতে হবে। অপ্রয়োজনীয় যা কিছু আমাদের গন্তব্যে পৌঁছতে দিচ্ছে না, সে সবকিছুই জীবন থেকে দূরে সরিয়ে ফেলতে হবে।

রাসূল (সা) বলেন: বানী আদম বলছে- আমার সম্পদ, আমার সম্পদ। অথচ তার সম্পদ কেবল সেগুলি যা সে খেয়ে শেষ করেছে, পরিধান করে ছিঁড়ে ফেলেছে, আর সাদকাহ্ করেছে অথবা ব্যয় করেছে। -[আহমাদ ৪/২৪]

অর্থাৎ যে সম্পদের স্তুপ গড়তে আমরা ব্যস্ত সে সম্পদের কার্যকরিতা কিংবা উপকারিতা আমাদের মৃত্যুর সাথে সাথেই শেষ হয়ে যাবে। সুতরাং সম্পদ কিংবা প্রাচুর্যের পেছনে ছুটি মহান রব্ব কে ভুলে থাকা হবে আমাদের জন্য চরম বোকামি।


তথ্যসূত্রঃ
  • তাফসীর ইবনে কাছির  
  • টাইম ম্যানেজমেন্ট বই

1 টি মন্তব্য:

"পাঠ করুন আপনার পালনকর্তার নামে যিনি সৃষ্টি করেছেন মানুষকে জমাট রক্ত থেকে। যিনি কলমের সাহায্যে শিক্ষা দিয়েছেন মানুষকে যা সে জানত না। আপনার পালনকর্তা অতি দয়ালু। নিশ্চয়ই আপনার পালনকর্তার দিকেই প্রত্যাবর্তন হবে।"